গ্রামে চলো : দক্ষিণ ২৪ পরগণা

s24 p

“গ্রামে চলো জনগণের কাছে চলো” শ্লোগানকে সামনে রেখে বজবজের গ্রামাঞ্চলে আয়ারালার নেতৃত্বে বেশ কিছু গ্রাম বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বজবজ ১ ব্লকের মালিক পাড়া, সিং পাড়া, হালদার পাড়া,আদক পাড়া, জামালপুর, বৈষ্ণবপাড়া ও অন্যান্য অঞ্চলে গ্রামীণ শ্রমজীবি জনগণের সাথে বৈঠক হয়। বৈঠকে জনগণের দাবিদাওয়া ও এলাকার সমস্যাগুলিকে চিহ্নিত করেন কমরেডেরা। আয়রালার রাজ্য কমিটির সদস্য ইন্দ্রজিৎ দত্ত, দেবযানী গোস্বামী, পার্টির জেলা কমিটির সদস্যা কাজল দত্ত, বজবজ গ্রাম লোকাল কমিটির সদস্য কমরেডদের নেতৃত্বে বৈঠকগুলি অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকগুলিতে উপস্থিত ছিলেন যুব নেতা আশুতোশ মালিক ও ছাত্র সাথীরা। বৈঠক থেকে উঠে আসা সমস্যাগুলি নিম্নরূপ-

১) ১০০ দিনের কাজ করার ক্ষেত্রে আটঘন্টা কাজের পরিবর্তে সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টে পর্যন্ত কাজ করানো হচ্ছে, যা ১০০ দিনের কাজ অর্থাৎ এমজিএনআরইজিএ প্রকল্পটিকে চিরতরে বন্ধ করে দেওয়ার প্রাথমিক চক্রান্ত। ২) গ্রামীণ মানুষের ইন্দিরা আবাস যোজনার ঘরের জন্য অনেকে আবেদন করেছেন, ৪-৫ বছর অতিক্রান্ত হলেও তারা ঘরের টাকা পাননি। এ বিষয়ে কমরেডরা সমীক্ষা চালান বিভিন্ন গ্রামে এবং বেশকিছু নাম নথিভুক্ত করেন তারা। ৩) গ্রামাঞ্চলে পরিশ্রুত পানীয় জলের অভাব চোখে পড়েছে। আগে জলের সমস্যা ছিল, আন্দোলনের মধ্য দিয়ে জলের সমস্যার আংশিক সমাধান হয়, কিন্তু তা পরিশ্রুত নয়। ইদানিং ঐ জায়গায় ঘোলা জল পাওয়া যাচ্ছে যা অস্বাস্থ্যকর। পরিশ্রুত পানীয় জলের অভাব গ্রামাঞ্চলে একটি বড় সমস্যা। ৪) গ্রামের রাস্তা নিয়ে সংগঠনের কর্মীরা সমীক্ষা চালান। এখনো বহু গ্রামে রাস্তা খারাপ। কংক্রিটের রাস্তা নেই অনেক গ্রামে। কোথাও রাস্তা আছে কিন্তু ভগ্ন অবস্থায়, মেরামত করা হয়নি। ৫) গ্রামীণ স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলির অবস্থা খুবই খারাপ। ডাক্তার, নার্সের অভাব।স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলিতে কেউ চিকিৎসার জন্য গেলে তারা কোনোরকম চিকিৎসা ছাড়াই সরকারি হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়। অবিলম্বে এগুলির আধুনিকীকরণ করতে হবে এবং পর্যাপ্ত ডাক্তার নার্স রাখতে হবে। ৬) গ্রামীণ দরিদ্ররা বেশিরভাগই বার্ধক্যভাতা, বিধবাভাতা পাননি। এবিষয়ে কমরেডরা গ্রাম ঘুরে নামের তালিকা তৈরি করেছেন।

সমস্ত বৈঠকে আগামী ৯ সেপ্টেম্বরের এসডিও দপ্তরে ডেপুটেশন উপলক্ষ্যে বারুইপুর চলো আহ্বান রাখা হয়। বৈঠকগুলিতে গ্রামীণ শ্রমজীবি মহিলাদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো।

s 24 pgs

 

খণ্ড-26
সংখ্যা-28
12-09-2019