এনআরসি-র বিরুদ্ধে কলকাতায় যুক্ত বাম অবস্থান, মিছিল

left party in kolkata

নাগরিকত্বের বিভাজন সৃষ্টির উদ্দ্যেশ্যপ্রণোদিত এনআরসি মানছি না। সাম্প্রদায়িক বিভেদ ও ভয়সন্ত্রাস সৃষ্টিকারী এনআরসি মানছি না। এই আওয়াজ সামনে রেখে বাংলার বাম ও গণতান্ত্রিক শক্তিগুলি আবার রাস্তায় নামছে। দেশে অনেক গভীর সমস্যা থাকছে, সেসবের সমাধান করার দায়-দায়িত্ব পালন না করে বিদ্বেষ-বিভাজনের বিষময় পরিবেশ সৃষ্টি করে চলছে কেন্দ্রের মোদী সরকার, তার ধ্বংসাত্মক চেহারা ইতিমধ্যেই প্রকাশ হয়ে গেছে বাংলার লাগোয়া রাজ্য অসমে, ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকারের দৌরাত্ম্যে। এর মূল পরিচালনায় রয়েছে বিজেপি-আরএসএস এবং সঙ্গে তাদের হিন্দুত্ববাদী অন্যান্য সংগঠন। তারা অসমের পরে নিশানার জুজু দেখাচ্ছে আরও কিছু রাজ্যে, বিশেষ করে এই বাংলাকে আশু টার্গেট করছে। এই চক্রান্ত-ষড়যন্ত্রকে ছিন্নভিন্ন করে দিতে এর বিরুদ্ধে জনসংযোগ গড়ে তুলে প্রতিবাদ ও প্রতিরোধের আন্দোলনকেই হাতিয়ার করতে হবে। এই চ্যালেঞ্জ নিয়ে বাম ও গণতান্ত্রিক শক্তিগুলি মুখর হচ্ছে, পথে নামার পথে থাকার কর্মসূচী নিচ্ছে।

এনআরসি-র নামে সামাজিক উত্তেজনা সৃষ্টির বিরুদ্ধে, সামাজিক উত্তেজনা সৃষ্টি দূর করতে এনআরসি বন্ধের দাবিতে বাংলার বাম ও গণতান্ত্রিক ১৭টি দল এক যুক্ত উদ্যোগ শুরু করেছে। তারই সূচনা হিসেবে ২১ সেপ্টেম্বর মধ্য কলকাতার এন্টালী বাজার চত্বরে দু’ঘন্টাব্যাপী অবস্থান কর্মসূচী চলে। তারপর সেখান থেকে এক দৃপ্ত মিছিল বের হয়ে মল্লিক বাজার, পুরানো পার্ক ষ্ট্রীট মোড় হয়ে পার্কসার্কাস সাত রাস্তার সন্ধিস্থলে পৌঁছে শেষ হয়। এলাকাটি প্রধানত সংখ্যালঘু অধ্যুষিত মিশ্র প্রকৃতির। মিছিলের সামনের সারিতে ছিলেন অংশগ্রহণকারী সংগঠনগুলির নেতৃবৃন্দ। সহস্রাধিক লোকশক্তির এই মিছিলের শ্লোগানে পথের দু’ধারে মানুষজন তাকিয়েছেন ফিরে ফিরে।

শুরুতে অবস্থান সভায় বক্তব্য রাখেন বিভিন্ন দলের নেতৃবৃন্দ। সিপিআই রাজ্য সম্পাদক স্বপন ব্যনার্জী বলেন, নাগরিকত্ব ও দেশপ্রেমের নামে আতঙ্ক সৃষ্টি করা হচ্ছে। সিপিআই(এম) প্রবীণ নেতা বিমান বসু বলেন, শিল্প-কৃষি-অর্থনীতি ইত্যাদি বিপর্যস্ত। এই গোলকধাঁধার মধ্যে এবার নতুন খেলা শুরু হয়েছে এনআরসি। সিপিআই(এমএল) লিবারেশন রাজ্য সম্পাদক পার্থ ঘোষ বলেন, ওরা এনআরসি নামিয়েছে অসমে, বলছে নামাবে বাংলায়, এছাড়া নাগরিকত্ব সংশোধনী নতুন বিল (ক্যাব)ও আনার হুমকি দিচ্ছে যা সাম্প্রদায়িক রাজনীতির মেরুকরণের উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। এর বিরুদ্ধে লড়তে হবে, লড়াইয়ে জোট গড়ে তুলতে হবে। নাগরিকত্বের অধিকার কিছুতেই কেড়ে নিতে দেওয়া হবে না। বক্তব্য রাখেন আরএসপি নেতা অশোক ঘোষ, ফরওয়ার্ড ব্লক রাজ্য সম্পাদক নরেন চ্যাটার্জী, আরসিপিআই নেতা মিহির বাইন, সিপিবি নেত্রী বর্ণালী মুখার্জী প্রমুখ। সভা সঞ্চালন করেন সিপিআই(এম) কলকাতা জেলা সম্পাদক কল্লোল মজুমদার।

খণ্ড-26
সংখ্যা-30
26-09-2019